রেডিওথেরাপি কি? কত প্রকার? পার্শ্ব প্রতিক্রি?

রেডিওথেরাপি কি?

রেডিওথেরাপি শব্দটি ইংরেজি ‘Radiation Therapy‘ শব্দের সংক্ষিপ্ত রূপ। রেডিও থেরাপি বিভিন্ন চিকিৎসার ব্যবহার করা হয় যেমন- ক্যান্সার, থাইরয়েড গ্রন্থির অস্বাভাবিক বৃদ্ধি, রক্তের কিছু ব্যাধির চিকিৎসায় ব্যবহার করা হয়।

ক্যান্সার চিকিৎসা রেডিওথেরাপির ব্যবহার?

সবচেয়ে বেশি ক্যান্সার চিকিৎসায় রেডিও থেরাপি ব্যবহার করা হয়ে থাকে। সাধারণত রেডিওথেরাপি উচ্চ শক্তি সম্পন্ন এক্সরে ব্যবহার করে ক্যান্সার কোষ কে ধ্বংস করে থাকে। এটি টিউমার কোষের অভ্যন্তরস্থ ডিএনএ (DNA) কে ধ্বংস করার মাধ্যমে কোষের সংখ্যা বৃদ্ধি করার ক্ষমতা নষ্ট করে ফেলে।

cancer bangladesh
ক্যান্সার

ক্যান্সার রোগীর 60 থেকে 70 ভাগই কোন না কোন ভাবে রেডিওথেরাপির নেওয়ার প্রয়োজন হয়ে থাকে।

রেডিও থেরাপি কত ধরনের?

রেডিও থেরাপি দুই ধরনের। যথা:

  • বাহ্যিক রেডিও থেরাপি।
  • অভ্যন্তরীণ রেডিও থেরাপি।

বাহ্যিক রেডিও থেরাপি বলতে কি বুঝায়?

বাহ্যিক রেডিও থেরাপি বলতে সাধারণত শরীরের বাইরে ভিডিও থেরাপির প্রয়োগ। এক্ষেত্রে শরীরের বাইরের অংশে উচ্চ শক্তি সম্পন্ন এক্সরে, কোবাল্ট বিকিরণ, ইলেকট্রন বা প্রোটন বীম ব্যবহার করা হয়। শরীরের যে অংশে টিউমারটি অবস্থিত সে দিকে তাক করে এই বীমটি প্রয়োগ করা হয়। এর ফলে ক্যানসেল কোষের বৃদ্ধি ও বিভাজন ক্ষমতা ধ্বংস হয়ে যায়। এর ফলে অল্প কিছু সংখ্যক সুস্থ করেও ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

Radiotherapy Machine
Radiotherapy Machine

সাধারণত এই চিকিৎসায় উদ্দেশ্য হলো যে অধিক সংখ্যক ক্যান্সার কোষ কে ধ্বংস করা ও স্বল্প কিছু সংখ্যক সুস্থ কোষ ক্ষতি সাধিত হলেও সেগুলো প্রায় অধিকাংশই নিজে থেকে এই ক্ষতি মেরামত করে ফেলে।

অভ্যন্তরীণ রেডিও থেরাপি বলতে কি বুঝায়?

অভ্যন্তরীণ রেডিওথেরাপিরিতে শরীরের ভেতরে থেকে রেডিও থেরাপি দেওয়া হয়। এ প্রক্রিয়ায় রোগী তেজস্ক্রিয় তরল পদার্থ পানি হিসেবে গ্রহণ করে অথবা ইনজেকশনের মাধ্যমে রোগীর দেহে তেজস্ক্রিয় তরল পদার্থ প্রবেশ করিয়ে দেওয়া হয়। রক্তের ক্যান্সারের ক্ষেত্রে তরল পদার্থে তেজস্ক্রিয় ‘ফসফরাস’ ব্যবহার করা হয়।

হাড়ের ক্যান্সারের ক্ষেত্রে ‘স্ট্রেনশিয়াম’ ও থাইরয়েড ক্যান্সারের ক্ষেত্রে তেজস্ক্রিয় ‘আয়োডিন’ ব্যবহার করা হয়। এ প্রক্রিয়াকে ব্রাকিথেরাপি বলা হয়।

রেডিওথেরাপি সম্পর্কে ভুল ধারণ?

রেডিওথেরাপি চিকিৎসা এক্স-রে এর মতই কারণ, রেডিওথেরাপি দেওয়ার সময় আপনার কোন ব্যথা অনুভূত হবে না। রোগীর অবস্থার উপর নির্ভর করে এই রেডিও থেরাপি টি দেওয়া হয়ে থাকে।

রেডিও থেরাপি দেওয়ার সময় কিছু সুস্থ কোষের ক্ষতি হলেও সেটি নিজে নিজেই কোষটি পুনরুদ্ধার করতে পারে ।

রেডিও থেরাপির কিছু পার্শ্ব প্রতিক্রি?

রেডিওথেরাপি দেওয়ার পর রোগীর কিছু পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া দেখা দিতে পারে আবার নাও দিতে পারে সেগুলো হলো:

  • ক্ষুধা কমে যাওয়া।
  • ওজন কমে যাওয়া।
  • মুখ অথবা শরীর শুকিয়ে যাওয়া।

চিকিৎসকের সঠিক পরামর্শ নিয়ে পুষ্টি তালিকা তৈরি করে খাদ্য গ্রহণ করতে হবে।

রেডিও থেরাপি কতদিন দিতে হয়?

রেডিও থেরাপি চিকিৎসায় রোগীর চিকিৎসার সময়কাল নির্ধারিত নয়। রোগীর অবস্থা অনুসারে সময় নির্ধারিত হয়ে থাকে।

Spread the love

Leave a Comment